গ্রাফিক ডিজাইনের ধরন

সময়ের সাথে সাথে গ্রাফিক ডিজাইনটি বেশ বহুমুখী হয়ে উঠেছে। সামগ্রিক ধারণাটি বিভিন্ন ক্ষেত্র এবং বিশেষত্ব নিয়ে গঠিত। এখন গ্রাফিক ডিজাইনের কয়েকটি ধরণ উল্লেখ করা যাকঃ

প্রকাশনা নকশা – প্রকাশনার নকশা ঐতিহ্যগতভাবেই প্রচলিত। কিন্তু আমাদের প্রজন্মে ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে, এটি ডিজিটাল প্রকাশনায় রূপ নিয়েছে। প্রকাশনার ডিজাইনারদের লেআউট, টাইপোগ্রাফি এবং চিত্র সম্মিলিতভাবে সর্বোত্তম সম্ভাব্য ফলাফল নিশ্চিত করার জন্য সম্পাদক এবং প্রকাশকদের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করা দরকার। প্রকাশনার গ্রাফিক ডিজাইনের উদাহরণগুলির মধ্যে বই, সংবাদপত্র, নিউজলেটার, ম্যাগাজিন এবং ইবুক অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। 

পরিবেশগত নকশা – এই ধরণের গ্রাফিক ডিজাইনটি সাধারণত দৃষ্টিতে উপেক্ষা করা হয়। পরিবেশগত গ্রাফিক ডিজাইন হলো পরিবেশের দৃশ্যমান উপাদানগুলির ব্যবহার করে সেই জায়গাগুলির সাথে সংযোগ স্থাপন করা। পরিবেশগত নকশার উদ্দেশ্য সেই জায়গাগুলির মানুষের অভিজ্ঞতা উন্নত করা। এটি অভিজ্ঞতাকে আরও স্মরণীয় করে তোলে বা দর্শকদের অবহিত করে। আর্কিটেকচার, রাস্তার লক্ষণ, সিগনেজ, ইভেন্ট স্পেস এবং প্রাচীর সমস্ত পরিবেশগত নকশার উদাহরণ।

কর্পোরেট নকশা – কর্পোরেট ডিজাইন কোনও সংস্থার দৃশ্যমান পরিচয়ের সাথে সম্পর্কিত। ব্র্যান্ডের লোগো (লোগো ডিজাইনের সফ্টওয়্যার দিয়ে তৈরি), যা কোন ব্র্যান্ডের পরিচয় তৈরি করে এমন কোন দৃশ্যমান উপাদান কর্পোরেট ডিজাইনের সাথে যুক্ত হতে পারে। চিত্র, আকার এবং রঙের মাধ্যমে ব্র্যান্ডের মান যোগ করতে ব্র্যান্ডের বিপণনে এই জাতীয় গ্রাফিক ডিজাইন ব্যবহৃত হয়।

বিপণন এবং বিজ্ঞাপনের নকশা – সম্ভবত গ্রাফিক ডিজাইনের বহুল পরিচিত ধরণ হলো বিপণন এবং বিজ্ঞাপন। যখন বেশিরভাগ লোকেরা গ্রাফিক ডিজাইনের কথা ভাবেন, তখন তারা সম্ভবত বিপণন এবং বিজ্ঞাপন নকশার কথা ভাবেন। সামাজিক মিডিয়া গ্রাফিক্স, ম্যাগাজিনের বিজ্ঞাপন, বিলবোর্ড, ব্রোশিওর, ইমেল বিপণনের টেম্পলেট, বিষয়বস্তু বিপণন – গ্রাফিক ডিজাইনের এইগুলিই ব্যবহৃত ধরণের উদাহরণ।

প্যাকেজিং ডিজাইন – আপনি যখন কোনও নতুন পণ্য ক্রয় করেন, তখন সম্ভবত এটিতে কোন আকারের প্যাকেজিং বা ভিজ্যুয়াল উপাদান যেমন লেবেল, স্টিকার, বা মোড়ক দেখতে পান; এই উপাদানগুলি প্যাকেজিং ডিজাইনারদের দ্বারা তৈরি করা হয়। সাফল্যজনক বিপণন নিশ্চিত করতে এই ডিজাইনাররা বাজারের মধ্যে বর্তমান প্রবণতা সম্পর্কে সচেতন থাকার সর্বচ্চো প্রচেষ্টা করেন।

মোশন ডিজাইন – মোশন গ্রাফিক ডিজাইন গ্রাফিক ডিজাইনের একটি উপসেট। এর মধ্যে অ্যানিমেশন, ভিডিও গেমস, অ্যাপস, জিআইএফ, ওয়েবসাইট বৈশিষ্ট্য ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। এটি প্রযুক্তিগত অগ্রগতিতে ডিজাইনারদের নতুন মাধ্যমগুলি সন্ধান করাতে সহায়তা করে।

ওয়েব ডিজাইন – ওয়েব ডিজাইন এক ধরণের গ্রাফিক ডিজাইন নয়, গ্রাফিক ডিজাইন ওয়েব ডিজাইনের একটি উপাদান, সুতরাং এটি এখানে উল্লেখ করার মতো। কেন? কারণ ওয়েব ডিজাইনারদের অবশ্যই ব্যবহার উপযোগী, মনোরম ফ্রন্ট-এন্ড, লেআউট, চিত্র এবং টাইপোগ্রাফি বিবেচনা করতে হবে, আর এসব গ্রাফিক ডিজাইনের অন্তর্ভুক্ত।

কিছু বছর আগেও “ডিজাইন” সম্পর্কে মানুষের ধারনার একটি পরিসীমা ছিল। তবে আমরা আজ যে ডিজিটাল জগতে বাস করি, ইন্টারেক্টিভ স্ক্রিন এবং ডিভাইসগুলি সেই ধারণাটি কিছুটা বদলে দিয়েছে। এখন ডিজাইনের বিভিন্ন শাখা প্রশাখা প্রতিনিয়তই উদ্ভব হচ্ছে । ইউএক্স ডিজাইন এবং ইউআই ডিজাইন গ্রাফিক ডিজাইন জগতে এমনি ২টি বিষয়। চলুন বিষয় দুটি নিয়ে একটু জানা যাক।
 

ইউএক্স ডিজাইন ( UX Design)

ইউএক্স আসলে কি? ইউএক্স ডিজাইন, যা অভিজ্ঞতা নকশা হিসাবেও পরিচিত। এই নির্দিষ্ট ধরণের ডিজাইন ব্যবহারকারীদের সাথে যোগাযোগ করে ডিজাইনের উপাদানগুলির কাঠামো এবং যুক্তির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে। ইউএক্স ডিজাইনাররা গ্রাহকের সন্তুষ্টি সর্বাধিকীকরণের লক্ষ্যে একটি পণ্যের ব্যবহারযোগ্যতা, অ্যাক্সেসযোগ্যতা এবং পণ্যের সাথে ব্যবহারকারীর মনোরম মিথস্ক্রিয়াকে উন্নত করতে কাজ করে।

ইউআই ডিজাইন (UI Design)

ইউআই ডিজাইন বা ইউজার ইন্টারফেস ডিজাইন কোনও ডিজাইনের ইন্টারেক্টিভ উপাদানগুলির সাথে সম্পর্কিত। এই ধরণের ডিজাইনের ব্যবহারকারীর প্রয়োজন ভালভাবে বোঝা দরকার কারণ এটি ব্যবহারকারীদের ডিভাইসে কী করা উচিত তা নিশ্চিত সাহায্য করে। এই উপাদানগুলির মধ্যে ড্রপডাউন তালিকা, টগলস, ব্রেডক্র্যাম্বস, বিজ্ঞপ্তি, অগ্রগতির বার ইত্যাদির অন্তর্ভুক্ত রয়েছে মূলত, ইউআই ডিজাইন গ্রাফিক ডিজাইনের সংজ্ঞাটি প্রসারিত করছে; যে কোন ডিজাইনের যদি কোনও ইন্টারঅ্যাক্টিভিটি থাকে তা ইউআই হিসেবে ধরা হয়। এর মধ্যে স্থির চিত্রগুলিও অন্তর্ভুক্ত থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.